বান্দরবান জেলা অবস্থিত বাংলাদেশ সবচাইতে দক্ষিণ-পূর্ব জেলা। মূলত চারটি উপজেলায় বিভক্ত। তার মধ্যে থানচি রুমা আলীকদম এবং সাঙ্গ মাতা হরি বন্যপ্রাণী ও  অভয় অরণ্য, অন্যতম। একে বাংলাদেশের  কাশ্মীর বলা হয়। যেখানে রয়েছে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ উচু পাহাড় চিম্বুক এবং নীলগিরি। যেখান থেকে উৎপন্ন হয়েছে সাঙ্গু নদী এবং পতিত হয়েছে বাংলাদেশে। বান্দরবান জেলায় প্রবেশ পথে আপনাকে স্বাগত জানাবে আপনাকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর বিশাল এক সাইনবোর্ড দিয়ে যেখানে লেখা আছে সম্প্রীতির বার্তা পাহাড়ি এবং বাঙালির মধ্যে। শহরে রয়েছে স্বর্ণমন্দির। যা আপনাকে পুরনো এক  স্থাপত্য-শৈলীর নিদর্শন। বান্দরবান শহরের সবচেয়ে তে আকর্ষণীয় দিক আমার কাছে লাগে, পথে পথে পাহাড়ী  ফলমূল সাজিয়ে বসা দোকান গুলো, মিষ্টি পেঁপে আনারস আপনাকে নিয়ে যাবে অন্য এক সাধের জগতে যদি আপনি ভজন রসিক হয়ে থাকেন। অপূর্ব স্থাপত্য-শৈলীর নিদর্শন আর এখন গড়ে ওঠা ডিজিটালাইজেশন। আপনি প্রত্যেকটি যে উপজেলায় বিদ্যুৎ পাবেন। যা সত্যিই এক অকল্পনীয় বিষয়। বাংলাদেশ কতদূর এগিয়েছে/  তার তার জ্বলন্ত উদাহরণ এই বান্দরবান। এক পাশে পুরো সুন্দর্য বহু করার জন্য রয়েছে সেনাবাহিনী এবং বিডিআর এই নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা অন্যপাশে এক অনন্য সম্প্রীতির জেলা বান্দরবান। আপনি বাংলাদেশের যে কোন প্রান্ত হতে বান্দরবনের সরাসরি আসতে পারেন।

বান্দরবনে রয়েছে স্বর্ণমন্দির শত বছরের ঐতিহ্য লালন করে দাঁড়িয়ে রয়েছে। অন্যপাশে আপনি রুমা যাবে যেতে পারেন। রুমা সৌন্দর্য উপভোগ করতে হলে আপনাকে এক রাত থাকার পরিকল্পনা করতে হবে। বাংলাদেশের পাহাড়ি কন্যা রমা। যেতে হবে কখনো পথে চকচকে পিচ ঢালা পথে আবার কিছুদুর পাহাড়ি নৌকায় এবং কিছুটা পথ পায়ে হেঁটে। এক অনন্য অ্যাডভেঞ্চার আপনাকে নিয়ে যাবে অন্য এক জগতে। আপনারা যারা ছুটি কাটাতে ব্যাংকক , মালয়েশিয়া/কিংবা ভারতের হিমাচলে হিমাচলে যান, তারা যদি একবার রুম ঘুরে আসেন। আমার মনে হয়, দ্বিতীয়বার এই ভুলটি করবেন না, রুমা আপনাকে টেনে যাবে বারবার ।আপনার ছুটির দিনগুলোকে রঙিন করে তুলবে, এক অন্য মায়াবী জগতে, 
আর আপনি যদি অ্যাডভেঞ্চারপ্রিয় হন। আমার পরামর্শ হলো আপনি প্রথমে বান্দরবান শহরে প্রবেশ না করে, আলীকদম যাবেন ঢাকা থেকে, সেখান থেকে আপনি থানচি যাবেন। তারপরে নীলগিরি সৌন্দর্য উপভোগ করবেন, তারপর চিম্বুক। কিংবা শৈলকুপা হয়ে বান্দরবান শহরে রাত কাটাতে পারেন। তারপর পূর্ণ প্রস্তুতি নিয়ে রুমা যেতে পারেন। আপনি পথে পথে পাবেন পিচ ধালা পাহাড়ি রাস্তার অ্যাডভেঞ্চার আর অপরূপ সৌন্দর্যের নিদর্শন। যেন সৃষ্টিকর্তা আপনার জন্যই তৈরি করে রেখেছে। আপনার বিনোদনের জন্যই। আপনার ছুটির দিনগুলোকে রঙিন করার জন্য,।

বাংলাদেশের যে কোন প্রান্ত হতে আপনি বান্দরবনে আসতে পারবেন খুব সহজে,। কিন্তু আমি যে পথটি আপনাকে দেখাবো, এক অন্য জগতে ,সেটি অন্য রকমের , আপনি ঢাকা থেকে শ্যামলী পরিবহনের বাসে করে আলীকদম আসতে পারেন। আপনি সেখানে ছোট ছোট থাকার জন্য হোটেল পাবেন। ছোট্ট একটি শহর আলীকদম। আপনি যখন হোটেল রুমের সকালে ঘুম থেকে উঠে এক কাপ চা খেয়ে খেতে খেতে উপভোগ করবেন, পাহাড়ি বেষ্টিত জাদুর নগরী। থাকতে না চাইলে, সেখানে রয়েছে যাওয়ার ব্যবস্থা চান্দের গাড়ি, কিংবা আপনি বন্ধু-বান্ধবসহ পাহাড়ের সৌন্দর্য উপভোগ করতে করতে যাবেন ,তাহলে কিছু ভাই রয়েছে যারা মোটরসাইকেল নিয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে শহরের কয়েকটি স্পটে, শহরের প্রেসক্লাবের সামনে হতে আপনি মোটরসাইকেল ভাড়া করতে পারেন থানচি যাওয়া পর্যন্ত জন্য। কিংবা চাইলে বান্দরবান পর্যন্ত। আমি থানচি কথা পরামর্শ দেব, ভাড়া টা খুব সামান্য আপনার উপভোগ্য উপকরণের তুলনায়,20 কিলো রাস্তা ভাড়া মাত্র আপনি একা হলে 500 থেকে 600 টাকা কিংবা দুজন হলে নিতে পারেন প্রতিটি মোটরসাইকেল এর ভাড়া। প্যাসেঞ্জার সিটে বসে উঁচু নিচু পাহাড় এ রাস্তার চলবেন, আর আপনার যেখানে মনে হবে আমি এখানে কিছুক্ষণ সময় কাটাবো , সেখানেই দাঁড়িয়ে পড়বেন, ছবি তুলতে পারেন ভিডিও করতে পারবেন, মনের ইচ্ছা মত। সেখান থেকে থানচি যাবেন। দেখবেন নিরাপত্তাবেষ্টিত কতটা আপনাকে স্বাধীনভাবে ঘুরে দেখার সুযোগ করে দিয়েছে।। তারা পথে পথে তাদের চেকপোস্টে রয়েছে। আপনি আপনাকে সেখানে আপনার নাম ঠিকানা লিপিবদ্ধ করতে হবে এবং আপনার এ স্বার্থে। আপনি যে গাইড রুপি মোটর সাইকেল ভাড়া নিয়েছেন তার বিবরণ থাকবে সেখানে, আপনার ভয় পাওয়ার কিছু নাই, আপনি চাইলে তাদের কাছ থেকে নাম্বার নিতে পারেন যে কোন সাহায্য সহযোগিতার জন্য ফোন দিবেন তা আপনাকে সহযোগিতা করার জন্যই বসে আছে এবং আপনাকে নিষিদ্ধ নিরাপত্তা দেওয়ার জন্যে এই  পাহাড়ি পথে, আর যারা গাইড আপনি পাবেন তা সবাই দক্ষ এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে তারা রয়েছে। ভয় পাওয়ার বা বিপদের আশঙ্কা আর কোন কিছু নাই। আপনি থানছিতে থাকার জন্য পাবেন সেনাবাহিনী তৈরি কটেজ। এবং বেসরকারি ভাবে নির্মিত অনেক ছোট ছোট হোটেল। যেগুলো নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করবে, বা গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রশাসন। আপনার ভ্রমণকে অত্যন্ত মিশ্রিত নিরাপত্তাবেষ্টিত করা । এই নিয়ে কোনো ভয় পাওয়ার কোন কিছু নেই, শুধু আপনি সেখানে যাবেন সৌন্দর্যও করার জন্য কোন ভয় পাওয়ার জন্য নয় বা কোন দুর্ঘটনা ঘটার জন্য নয়। আপনি চাইলে নদী পথে ও বান্দরবান শহরের দিকে, থানচি দেখা শেষ হলে আপনি, দুটো জিনিস পাবেন একটি চান্দের গাড়ি অন্যটি বাস। কিংবা ভাড়া করা মোটরসাইকেল তো রয়েছে। যেখান হতে নীলগিরি আসতে পারেন, নীলগিরি সৌন্দর্য দুই রকমের আমার মতে, একটা শীতকালীন আরেকটি বর্ষাকালীন। আপনি শীতের সকালে নীলগিরি হিলিং স্পটে, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর নির্মিত কটেজে, রাত করাতে পারেন, বন্ধু-বান্ধবসহ কিংবা পরিবার-পরিজনসহ কিংবা আপনি  গ্রুপ সহ থাকতে পারবেন। চাইলে সেখানে রেস্টুরেন্ট রয়েছে। নিজেরা রান্না কর খেতে পারবেন। রাতের শীতের রাতের রান্না আপনার পছন্দমত পাহাড়ি সবজি পাবেন, ফলমূল পাবেন নীল, নীল গিরির রাস্তায় পসরা সাজিয়ে বসে আছে। স্থানীয় পাহাড়ি লোকজন। আর সেখানকার ফল মনে হতো এত সুস্বাদু যে আপনি ইচ্ছে করলে সে গুলোকে দু-তিন দিন কাটে দিতে পারবেন। দাম এর কথা মাথায় আনবেন না। বাংলা ঢাকায় কিংবা বাংলাদেশের যে কোন জায়গায় 1 কেজি পেঁপের যা মূল্য তার অর্ধেক মূল্য তে স্বর্গীয় অমৃত ও অমৃত সমৃদ্ধ পেঁপে কিনতে পারবেন মাত্র অর্ধেক মূল্যে যা অবিশ্বাস্য। নীলগিরিতে হেলিপ্যাড রয়েছে। জরুরী প্রয়োজনে ব্যবহার করার জন্য। মনে করেন হেলিকপ্টারে করে বা এই বান্দরবান এর সুন্দর  দেহ ভোগ করবেন !!! তাহলে বাংলাদেশ এখন অনেক হেলিকপ্টার সার্ভিস রয়েছে। আপনি ,আপনার জন্য সদা প্রস্তুত বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর পরামর্শ নিয়ে যে কোন একটি ভাড়া করতে পারেন। যেটি খরচ থাইল্যান্ডে এগিয়ে কিংবা কিংবা অন্য কোন দেশে গিয়ে যে খরচটি আপনি করে আসেন তারা অর্ধেক খরচে দ্বিগুণ মায়াবী জগতের আনন্দ উপভোগ করবেন। নীলগিরি হতে চিম্বুক এর দূরত্ব মাত্র 20 কিলোমিটার। আপনি সেখান থেকে খুব সহজেই চিম্বুক যেতে পারেন। চিম্বুকে বন্যপ্রাণী অভয় অরণ্যে ও চাইলে রাত কাটাতে পারে। ভয় নেই বাঘ কিংবা সিংহ খাবার আপনি হবেন না নিশ্চিত। কিন্তু ভাগ্য ভালো থাকলে গর্জন তো শুনতে পারবেন। এতে  শীতকালীন সৌন্দর্য, চিন্তা করুন একবার খুব ভোরে আপনি ঘুম থেকে উঠেছেন এক কাপ চা হাতে নীলগিরি কিংবা চিম্বুকের চূড়ায় বসে আছেন আর সূর্য পাহাড় ভেদ করে উপরে উঠছে, একবার চোখ বন্ধ করে কল্পনা করুন, আমি ঘুরে আমি ঘুরে এসেছি, এখনো চোখ বন্ধ করে লিখার সময় ভাবছি আর অনুভব করি এ এক অন্য জগত যদি আপনি প্রকৃতি প্রেমী হন। আপনি সেখানে যেতে পারেন সত্যি বলছি এক অপরূপ সৌন্দর্য ভোগ করবেন। আপনি চিম্বুক হতে চান্দের গাড়ি চড়ে  বান্দরবান শহরে আসবেন। মাঝখানে শৈলকুপা তে স্নান করে নিতে পারেন। আর আপনি যদি বর্ষায় জান এপ্রিল মাসের পর থেকে জুন জুলাই অগাস্ট কিংবা সেপ্টেম্বরে। আপনি নীলগিরি চূড়ায় বসে, চায়ের সঙ্গে সঙ্গে সূর্যটা দেখতে সূর্যটা দেখতে পাচ্ছেন সঙ্গে বাংলাদেশের সবচাইতে বড় ঝরনা শব্দ আপনার কানে ভেসে আসছে। পৃথিবীর কোন দেশে একসঙ্গে, আপনি এটা পাবেন না। একটু বেলা হলে আপনি আধা কিলোমিটারের পথে ঝর্ণার তে গিয়ে গোসল করে আসতে পারেন, দেখে নিতে পারেন সৃষ্টিকর্তার এক অপূর্ব নিদর্শন। যা আপনাকে দেখতে সুইজারল্যান্ড যেতে হবে না। আপনার পাসপোর্ট লাগবে না ভিসা ও লাগবে না হ্যাঁ সঙ্গে বাংলাদেশ জাতীয় পরিচয় পত্র ঠিক রাখবেন যেটি আপনার নিবন্ধন করতে কাজে লাগবে। যা দিয়ে আপনার নিরাপত্তা বিধান করবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী।

কিভাবে যাবেন ?

বান্দরবান রাত কাটিয়ে আপনি যেতে পারেন রুমা। মিশে যেতে পারেন, আমাদেরই পাহাড়ি এলাকায় বসবাসরত মানুষের সঙ্গে। মনে রাখবেন তারা আপনাকে মন প্রাণ উজাড় করে আতিথিয়তা প্রদান করবে। এরা ভিন্ন কেউ নয়, ভিন্ন কোন দেশ থেকে আসা নয়। এরা আমাদের দেশের বসবাসরত এবং এরা বাংলাদেশের সন্তান অন্য কোন ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠী মাত্র। আপনি তাদের ব্যবহার এবং তাদের সংস্কৃতির সঙ্গে যদি একটি দিন কাটিয়ে আসতে পারেন তবে মনে করবেন আপনি জীবনে অনেক কিছু পেয়েছেন। সৃষ্টিকর্তা আপনাকে অনেক কিছু দেখার এবং উপলব্ধি করার সুযোগ করে দিয়েছে। আপনার জীবন পরিপূর্ণ। ঢাকা চট্টগ্রামের অলিতে গলিতে তো স্পা সেন্টার অনেক রয়েছে, তার জন্য মালয়েশিয়া কিমা ব্যাংকক যাওয়ার কী প্রয়োজন । যারা সেখানে যাই বেশিরভাগই শে স্পা সেন্টার এর মজার নেওয়ার জন্য যায় আর বাড়তি কিছু অবৈধ কিংবা বৈধ ইনকামের খরচটা বাড়াতে চায়, সামাজিক মর্যাদা বাড়াতে চায়,মানুষকে বোঝাতে চায়। আমার অনেক টাকা রয়েছে আমি ব্যাংকক থেকে ঘুরে আসলাম । কিন্তু বান্দরবানের এ সৌন্দর্য উপলব্ধি করে একবার ঘুরে আসতে পারেন আসতে পারেন ।

Live Jurney to distinction the suach The root of Bangladesh . ist Juarny Cox’s Bazar to Chimbok via Alli kodom, and nilgiliri

1st vedio for ; bnbat.com
bnbat.com

কোথায় ঘুরবেন?

One thought on “

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *